starbangla.tv l tv channel l News & Program
Welcome
Login / Register

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি


  • খুলে দেওয়া হলো সিটিসেল

    ১৭ দিন পর আবার মোবাইল ফোন অপারেটর সিটিসেলে সংযোগ দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাংলাদেশের টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসির চেয়ারম্যান প্রকৌশলী শাহজাহান মাহমুদ। তিনি জানান, আজ রোববার সন্ধ্যায় বিটিআরসির সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তারা সংযোগ দেন। এর আগে সন্ধ্যা ৬টার পূর্বে বিটিআরসির পরিচালক ইয়াকুব আলী ভূইয়ার নেতৃত্বে চার সদস্যের একটি দল সিটিসেলের প্রধান কার্যালয়ে প্রবেশ করেন। পরে সংযোগ দেয়া হয়। উল্লেখ্য, বকেয়া টাকা শোধ না করায় গত ২০ অক্টোবর সিটিসেলের তরঙ্গ স্থগিত করা হয়। এরপর সিটিসেল কার্যক্রমে ফেরার জন্য আপিল করে। পরে গত বৃহস্পতিবার শিগগিরই সিটিসেলের তরঙ্গ খুলে দেওয়ার নির্দেশ দেয় সর্বোচ্চ আদালত। তবে আপিল বিভাগ আগামী ১৯ নভেম্বরের মধ্যে বকেয়ার ১০০ কোটি টাকা পরিশোধ করার বাধ্যবাধকতা দিয়েছে সিটিসেলকে।

    Read more »
  • বাংলাদেশি গবেষকের উদ্ভাবন: হত্যাকাণ্ড তদন্তে বিচারকদের সহায়তা করবে ভার্চুয়াল রিয়েলিটি রোবট

    বিচারকরা (জুরিরা) শুধু বিরলক্ষেত্রেই ক্রাইম সিন পরিদর্শনের অনুমতি পান। কিন্তু এটা বয়ে আনে অনেক রকম লজিস্টিক্যাল ও নিরাপত্তাগত চ্যালেঞ্জ। ভার্চুয়াল রিয়েলিটি প্রযুক্তি ব্যবহার করে তারা পারবেন ক্রাইম সিন ‘রিমোটলি’ পর্যবেক্ষণ করতে। ইংল্যান্ডের ডারহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ফরেনসিক সায়েন্স বিভাগের বাংলাদেশি গবেষক মেহযেব চৌধুরী বর্তমানে এমন একটি সিস্টেম উদ্ভাবন করছেন, যার মাধ্যমে এসবই সম্ভব হবে। মেহযেব চৌধুরী এই প্রতিবেদন দি কনভারসেশনের (বৃটিশ স্পেশালাইজড সাময়িকী) জন্য লিখেছেন। যা প্রকাশ হয়েছে ২৬শে আগস্ট। ইতিমধ্যে ডেইলি মেইল, বিজনেস ইনসাইডারসহ ২৭০০টি আন্তর্জাতিক সাইটে নিবন্ধটি প্রকাশিত হয়। গবেষণার বিষয়ে রাশিয়ান রেডিও স্পুটনিক মেহযেব চৌধুরীর দীর্ঘ সাক্ষাৎকারও প্রচার করেছে।  
    ক্রাইম সিন সরজমিন পরিদর্শনের সুযোগ বিচারকদের জন্য কমই আসে। তবে ১৯৯৫ সালের ও. জে সিম্পসনের বিচার ছিল তেমনই একটি উদাহরণ। কতিপয় হাইপ্রোফাইল হত্যা মামলা এবং সাধারণত জটিল ধরনের মামলায় অবশ্য এমনই ব্যতিক্রম ঘটে।
    এই উপায়ে জুরিদেরকে ফ্যাক্ট ফাইন্ডার হিসেবে ক্রাইম সিনে যেতে বললে তা অনেক সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। এতে সমস্যার ধরন হয় সম্ভাব্য পক্ষপাতিত্ব থেকে লজিস্টিক্যাল ও সিকিউরিটি  চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করার।
    কিন্তু ক্রমান্বয়ে উন্নত হতে থাকা ইমেজিং, রোবোটিক্স এবং আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স দ্বারা এসব সমস্যা এড়ানো যেতে পারে।
    ডারহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ফরেন্সিক সায়েন্স অ্যান্ড ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন বিভাগের এই গবেষক বলছেন, ভার্চুয়াল রিয়েলিটি এর উত্তর হতে পারে। প্রকাশিত নিবন্ধে তিনি বলেছেন, আদালত কক্ষের বাইরে না বেরিয়ে বিচারক ও জুরিদের সামনে কোনো একদিন ক্রাইম সিনটা ভেসে উঠতে পারে।
    ক্রাইম সিন পরিদর্শন করা বিচারককে সাহায্য করে প্রসিকিউশন ও আসামি পক্ষের আনা যুক্তি-তর্ক  যাচাই করতে।
    উদাহরণ হিসেবে বলা যায়,  সংগীত প্রযোজক ফিল স্পেকটর ২০০৭ সালের (লানা ক্লার্কসন) হত্যা মামলার আসামি ছিলেন। তার আইনজীবীরা দাবি করেন যে, ক্রাইম সিনে একটি বড় ঝরনা থাকায় সাক্ষী ভুল শুনেছেন যে, স্পেকটর অপরাধটা করেছেন বলে স্বীকার করেছেন।
    ক্রাইম সিন পরিদর্শনের মাধ্যমে জুরি বিচার করতে পেরেছিলেন যে, এটা ঘটার সম্ভাবনা কতটা বাস্তব ছিল। একই সঙ্গে তারা আরো ভালোভাবে বুঝতে পেরেছেন যে, কিভাবে একের পর এক ঘটনাগুলো ঘটেছিল।
    যখন জুরি ক্রাইম সিন পরিদর্শন করেন, তখন তারা অপরাধ সংঘটনের সময়কার মূল দৃশ্য বা উপাদানগুলো নাও প্রত্যক্ষ করতে পারেন।
    সিম্পসনের বিচার চলাকালে গুরুতর অভিযোগ উঠেছিল যে, ক্রাইম সিনকে সাজানো হয়েছিল। ক্রাইম সিনের বিষয়গুলোকে অদলবদল করা হয়েছিল।
    অপরাধ সংঘটনের পরে যত বেশি সময় অতিবাহিত হবে, ততোই ক্রাইম সিনের চেহারা বদলে যাওয়ার সম্ভাবনা বাড়তে থাকবে।
    আলোকচিত্র একটি ক্রাইম সিনের সীমিত ধারণা দিতে পারে। সেখানে একজন আলোকচিত্রী কোন্‌ বিষয়টিকে বেশি গুরুত্ব দিলেন তার মাধ্যমেও বিষয়টি সীমিত হতে পারে। তারা ভিন্ন ভিন্ন ভাবে ক্রাইম সিনের উপকরণগুলোকে নানাভাবে ব্যাখ্যা দিতে পারেন। এবং সাক্ষ্য প্রমাণের বিভিন্ন উপাদানকে তারা কিভাবে গুরুত্ব প্রদান করেন তাও বিবেচ্য হয়ে ওঠে।
    ভিডিও একটি ক্রাইম সিন সম্পর্কে আরো বেশি ভালোভাবে ধারণা দিতে পারে। কিন্তু  এরও সীমাবদ্ধতা রয়েছে।
     স্কেচ অবশ্য এমনভাবে ক্রাইম সিনের ধারণা তুলে ধরতে পারে যা আলোকচিত্র বা ভিডিও দিতে পারে না।
     স্কেচ ক্রাইম সিন সম্পর্কে একটা সাধারণ ওভারভিউ বা ধারণা দিতে পারে। এভিডেন্সের যথার্থ কিংবা তার কাছাকাছি একটা অবস্থানও নির্দেশ করতে পারে।
    কিন্তু  স্কেচ  ইনহেরেনটলি বা অন্তর্গতভাবে একটি ক্রাইম সিনের কম বাস্তবসম্মত চিত্র তুলে ধরে এবং সেখানেও স্কেচকারীর ব্যক্তিগত দৃষ্টিভঙ্গির প্রভাব প্রখর হতে পারে।
    যাই হোক, নতুন প্রযুক্তির উন্নয়ন ঘটছে যেখানে থ্রি ডি ইমেজিং, প্যানোরোমিক ভিডিওগ্রাফি, রোবোটিক এবং ভার্চুয়াল রিয়েলিটি ব্যবহার করে ক্রাইম সিনের আরো নিখুঁত  এবং প্রতিনিধিত্বশীল ছবি ধারণ এবং তা রিলে করতে ক্রাইম সিন ইনভেস্টিগেটর (সিএসআই)কে সক্ষম করে তুলবে।
    উদাহরণ হিসেবে স্ট্যামফোর্ডশায়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা ক্যারোলাইন স্টার্ডি  কোলসের নেতৃত্বে গ্রিনস্ক্রিন, ভিডিও গেম সফটওয়্যার এবং সর্বশেষ ভার্চুয়াল রিয়েলিটি হেডসেট (যেমন অক্যুউলাস রিফট এবং এইচটিসি ভাইব) ব্যবহার করে ভার্চুয়াল ক্রাইম সিন ডিজিটালগতভাবে রিপ্রডিউস অর্থাৎ পুনরায় নির্মাণ করতে সক্ষম হয়েছে।
    বিচরকরা (জুরিরা) সিস্টেম দ্বারা পুনঃনির্মিত থ্রি ডি ওয়ার্ল্ডে স্বাচ্ছন্দ্যে বিচরণ করতে পারবেন এবং ক্রাইম সিনের গুরুত্বপূর্ণ খুঁটিনাটি (ভাইটাল ডিটেইলস) পরীক্ষা করতে পারবেন। 

    একটি সম্পাদিত ভিডিওর মাধ্যমে বিচারককে প্রভাবিত করার ঝুঁকি থাকে। কিন্তু সেই আশংকা এখানে থাকবে না। বরং এ ধরনের এভিডেন্স একটি সিন ডকুমেন্টকরণকে আরো সহজতর করবে।
    এটা অবশ্য নির্ভর করে তাদের উপরে যারা ক্রাইম সিনের কোনো বিকৃতি  না ঘটিয়ে তথ্য সংগ্রহ করবেন।
    থ্রি ডি রিক্রিয়েশন এবং কম্পিউটারের মাধ্যমে ভার্চুয়াল রিয়েলিটি সিমুলিয়েশনের একটি সমস্যা হলো, সেখানে ব্যয়বহুল হেডসেট এবং উন্নতমানের কম্পিউটারের দরকার পড়ে।
    ফার্স্ট জেনারেশন ভার্চুয়াল রিয়েলিটি (ভিআর) সিস্টেম যেমন এইচটিসি ভাইব (৭৫৯ পাউন্ড অথবা ৭৯৯ ডলার) এবং অকুলাস রিফট (৫৪৯ পাউন্ড অথবা ৬শ’ ডলার)  এসব এতটা ব্যয়বহুল হওয়া সত্ত্বেও এর সঙ্গে অতিরিক্ত ভিআর কম্পলায়েন্ট কম্পিউটার অথবা কনসোল লাগে। এসব ছাড়া কাজ করে না।
    এই সমস্যা কাটিয়ে ওঠার জন্য আমি এবং আমার ডারহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকর্মীরা একটি রোবট সিস্টেম তৈরি করছি। এটা করতে আমরা নাসা’র ‘কিউয়িরসিটি’ নামের একটি রোবট দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়েছি। এই রোবট সিস্টেমটি ক্রাইম সিনের ইমারসিভ বা অত্যন্ত মুগ্ধকর ভিডিও ফুটেজ ধারণ করবে।
    এম.এ.বি.এম.এ.টি. ৩৬০ ডিগ্রি ভিডিও এবং ছবি ধারণ করবে, যা যে কোনো কম্পিউটার অথবা স্মার্ট ফোনের একটি উপযুক্ত অ্যাপ দ্বারা চালানো সম্ভব।
    একটি বেসিক অ্যাডাপ্টার হেডসেট যেমন ১০ পাউন্ডের (১৫ ডলার) গুগল কার্ডবোর্ডের মাধ্যমে পুনরায় সৃষ্টি করতে পারবে একটি অভিন্ন ভিআর অভিজ্ঞতা, যা হবে উপরে উল্লিখিত সরঞ্জামের মতো। কিন্তু তা ব্যয়বহুল হবে না। খরচ পড়বে নামমাত্র।
    এতে থ্রি ডি গ্রাফিক্স রেন্ডার করার প্রয়োজন নেই,  না প্রয়োজন পড়বে কোনো শক্তিশালী কম্পিউটার। কিন্তু ধারণ করবে কোনো একটি ক্রাইম সিনের সব দিক থেকে তোলা যথার্থ আলোকচিত্র।
    ব্যবহারকারীরা তাকাতে পারবেন, ডানে বামে উপরে নিচে এবং পারবেন জুম ইন বা জুম আউট করতে।
    আদালত কক্ষের জুরিদেরকে যেমন সাহায্য করবে তেমনি এই সিস্টেম ইনভেস্টিগেটরদেরকে  অপরাধের দৃশ্যপটের প্রাথমিক ফরেনসিক পর্যবেক্ষণে সাহায্য করবে। তথ্য তিনটি ভিন্ন উপায়ে ধারণ করা যাবে।
    একজন সিএসআই একটি ‘‘প্রিডিফাইন্ড পাথ’’ বা পূর্ব নির্ধারিত পথ নির্দিষ্ট করতে পারবে। যা রোবটটি ব্যবহার করে উন্নত মানের ৩৬০ ডিগ্রি ভিডিও চিত্র ধারণ করবে।
    ওই রোবটটিকে একটি ব্লু টুথ রিমোট অথবা স্মার্ট ফোন বা ট্যাবলেট দ্বারাও নিয়ন্ত্রণ করা যাবে।
    এর অতিরিক্ত, রোবটটি আলট্রাসনিক, মোশন এবং ইনফ্রা রেড সেন্সর ব্যবহার করে নিজকে একটি ক্রাইম সিনের মধ্য দিয়ে নিয়ে যাবে আর এসময় সবকিছুই চিত্রায়িত হবে।
    পুরো সিস্টেমটির খরচ পড়বে শুধু ২৯৯ পাউন্ড (৩৯৫ ডলার) এবং এই দাম ভবিষ্যতে আরো কমবে। কারণ ‘র‌্যাস্পবেরি পাই’’ এবং ‘আরডুইনো’’-এর মতো সস্তা কম্পিউটার সিস্টেম দ্বারা গঠিত ওপেন সোর্স রোবোটিক কিটস সহজলভ্য হবে।
    আরেকটি অগ্রগতি ঘটতে পারে গুগলের ট্যাঙ্গো প্রকল্পের মাধ্যমে। যা তাৎক্ষণিকভাবে দৃশ্যপট এবং ভূখণ্ডের (টেরেইন) থ্রি ডি ইমেজ তৈরি করতে পারে। এর মাধ্যমে ক্রাইম সিন স্কেচিংয়ের অবসান ঘটবে।
    এর মাধ্যমে পাওয়া যাবে এমন একটি মনোমুগ্ধকর অভিজ্ঞতা যাতে ক্রাইম সিনের উপাদানগুলোর নিখুঁত ও খুঁটিনাটির জীবন্ত বিবরণ দেখা যাবে। 

    Read more »
  • শিক্ষার্থীদের টাকা আয়ের কৌশল শেখাবে গুগল

    বিশ্বখ্যাত প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান গুগল পাকিস্তানের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের গুগলের আধুনিক সব টুলস এবং সেবা সম্পর্কে প্রশিক্ষণ প্রদান কার্যক্রম শুরু করতে যাচ্ছে।

    গুগলের এই কার্যক্রমের প্রধান উদ্দেশ্য হচ্ছে, গুগলের বিভিন্ন সেবা ব্যবহার করে শিক্ষার্থী, প্রাথমিক ডেভলপার, ডিজাইনার এবং ব্লগাররা কিভাবে অর্থ উপার্জন করবে তাই শিখানো হবে এই কার্যক্রমে।

    গুগল থেকে আয় করার প্রধান দুটি মাধ্যম হচ্ছে, গুগল অ্যাডসেন্স এবং গুগল অ্যাডমব। এই দুটি সেবা সম্পর্কেই বেশি গুরুত্ব দেয়া হবে এই কার্যক্রমে। আর এই দুটি সেবাই ওয়েব বা মোবাইলে কনটেন্টের জন্য টাকা আয়ের চমৎকার উপায়।  

    গুগলের এক দল পেশাদার এবং প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ খুব শিগগির পাকিস্তান পরিদর্শনে আসবে। এখানকার ইন্টারেনেট বিপণনকারী, ডেভলপার এবং ব্লগারদের সঙ্গে কথা বলবেন তারা। কিভাবে প্রযুক্তির উদীয়মান বাজারে সফল হওয়া যায় তারই কৌশল শেখাবে গুগল টিম।   

    পাকিস্তানে ইন্টেরনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। গুগল টুলসের প্রচারে পাকিস্তানকে এখন ভালো বাজার হিসেবে দেখছে গুগল। সূত্র: ডন নিউজ। 

    Read more »
  • স্যামসাংয়ের নিজস্ব অপারেটিং সিস্টেমের ফোন

    স্যামসাংয়ের নিজস্ব অপারেটিং সিস্টেম টাইজেন। এই অপারেটিং সিস্টেম সম্বলিত ফোন জেড২। এই ফোনটি ২৩ আগস্ট থেকে ভারতের বাজারে পাওয়া যাবে।

    ফোনটিতে আছে ৩.৯৭ ইঞ্চির ডব্লিউভিজিএ ডিসপ্লে। এতে ১.৫ গিগাহার্জের কোয়াডকোর প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। র‌্যাম আছে ১ জিবি। বিল্টইন মেমোরি ৮ জিবি। মাইক্রোএসডি কার্ডের মাধ্যমে মেমোরি বাড়ানোর সুযোগ আছে।

    স্যামসাংয়ের নতুন ফোনটির রিয়ার ক্যামেরা ৫ মেগাপিক্সেলের। ফ্রন্ট ক্যামেরা ০.৩ মেগাপিক্সেলের। এর ব্যাটারি ১৫০০ মিলিঅ্যাম্পায়ার আওয়ারের।

    ফোনটিতে আছে টাইজেন ২.৪ অপারেটিং সিস্টেম।

    Read more »
  • গ্রামীণফোনের নতুন নম্বর স্কিম ০১৩

    ০১৭-এর পাশাপাশি গ্রামীণফোন নতুন কোড নম্বর (নম্বর স্কিম) ০১৩ বরাদ্দ পেয়েছে। অপারেটরটির আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি এই নম্বর স্কিম বরাদ্দ দিয়েছে। বিটিআরসি জানিয়েছে, গ্রামীণফোনের জন্য ০১৭ নম্বর স্কিমে বরাদ্দকৃত ১০ কোটি নম্বরের বিক্রি প্রায় শেষের পথে। নভেম্বরের মধ্যে গ্রামীণফোনের জন্য বরাদ্দকৃত ১০ কোটি নম্বরের কোটা শেষ হয়ে যাবে। এর আগে বা পরে চালু হতে পারে ০১৩। সে সময় গ্রামীণফোনের নতুন ব্যবহারকারীদের ডায়ালিং কোড নম্বর হবে ০১৩।

    Read more »
RSS
উপদেষ্টা : এডভোকেট মামুনুর রশিদ মামুন
কৃষিবিদ এম. সগিরুল ইসলাম মজুমদার ( জাপান)
প্রধান সস্পাদক: ডা: এম এ মতিন,
সম্পাদক: মো: জিয়াউল ইসলাম
সহ-সম্পাদক: নেছার উদ্দিন মজুমদার
অফিস: ৩৫ পুরানা পল্টন লাইন নীচতলা, ভি আই পি রোড ঢাকা-১০০০
ফোন: ০১৭২৭৯৩২৬৫২, ৯৩৫৪৯৯
জাপান ডেক্স +৮১৯০৬৮৬৩৪৭৩৩২
ইমেইল: videostarbanglatv@gmail.com